পারভিন ফাতিমাকে নোটিস না পাঠিয়ে বুলডোজারে গুঁড়িয়ে দিল বাড়ি

  • 16 June, 2022
  • 0 Comment(s)
  • 175 view(s)
  • লিখেছেন : সিউ প্রতিবেদক
বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেওয়া হলো উত্তরপ্রদেশের প্রয়াগরাজে পারভিন ফাতিমার বাড়ি।  বেআইনি নির্মাণকাজের অভিযোগ তুলে ভেঙে ফেলা হয়েছে বাড়িটি। কিন্তু বাড়ি ভেঙে ফেলা হবে এমন আগাম কোনও নোটিস পারভিন ফাতিমার নামে আসেনি। বেআইনি নির্মাণের অভিযোগ তুলে প্রশাসনই বেআইনি পথে, বাড়ির মালিককে না জানিয়ে বাড়ি ভাঙল।

বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেওয়া হলো উত্তরপ্রদেশের প্রয়াগরাজে পারভিন ফাতিমার বাড়ি।  বেআইনি নির্মাণকাজের অভিযোগ তুলে ভেঙে ফেলা হয়েছে বাড়িটি। কিন্তু বাড়ি ভেঙে ফেলা হবে এমন আগাম কোনও নোটিস পারভিন ফাতিমার নামে আসেনি। নোটিস এসেছে তাঁর স্বামী মুহম্মদ জাভেদের নামে। বেআইনি নির্মাণের অভিযোগ তুলে প্রশাসনই বেআইনি পথে, বাড়ির মালিককে না জানিয়ে বাড়ি ভাঙল। সমাজকর্মী মুহম্মদ জাভেদের স্ত্রী পারভিন ফাতিমা। মুহম্মদ  জাভেদ ‘ওয়েলফেয়ার পার্টি অফ ইন্ডিয়া’র সদস্য। তাঁদের মেয়ে, জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী আফরিন ফাতিমা সামাজিক আন্দোলনের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে যুক্ত। সম্প্রতি মুহম্মদ জাভেদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে প্রয়াগরাজে অশান্তি ছড়ানোর। মুহম্মদ জাভেদকে চরম শিক্ষা দিতেই  প্রয়াগরাজ পুর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বেআইনি প্রক্রিয়ায় পারভিন ফাতিমার বাড়ি গুঁড়িয়ে দিয়েছে। পারভিন ফাতিমার বাড়ির নির্মাণকার্য বেআইনি নয় বলে আলজাজিরাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন তাঁর মেয়ে আফরিন ফাতিমা। বাড়িটির বয়স কুড়ি বছর। নিয়মিত ট্যাক্স দেওয়া হয়। এবং  বেআইনি নির্মাণকার্যের অভিযোগ জানিয়ে প্রয়াগরাজ পুর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে কোনও চিঠি মায়ের নামে আসেনি বলেই আফরিন জানিয়েছেন।

উত্তরপ্রদেশের হিন্দু মৌলবাদী সরকার, বাড়ির মালিকের অস্তিত্ত্বকেও বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দিল, তিনি একজন মহিলা বলে। সংখ্যাগুরু সম্প্রদায়ের যে মহিলারা হিন্দুত্ববাদী দল ও তার সরকারের তত্ত্ববধানে নিরাপত্তাবোধ করছেন তাঁদের ভেবে দেখতে বলছি। এই দল শুধু মুসলিম  বিদ্বেষী, তাই মুসলিম মহিলার মালিকানা অস্বীকার করে পিতৃতান্ত্রিক ভাবনা ফলিয়েছেন মাত্র বলে আরামবোধ করবেন না। স্মরণ করিয়ে দিই বছর চারেক আগের ঘটনা। হিন্দুত্ববাদী দলের একটি লিফলেটের বয়ান। হিন্দু মেয়েদের শাঁখা, সিঁদুরের সংস্কৃতি ফিরিয়ে আনার আবেদন ছিল ওই লিফলেটে। সেটা বিলি করা হয়েছিল কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের মধ্যে। শাঁখা, সিঁদুরের  প্রতীক বুঝিয়ে দেয় সেই মেয়েটি স্বামী অর্থাৎ কোন মনিবের অধীন। স্ত্রীর মনিব বা মালিক যখন স্বামী, তাহলে স্ত্রীর সম্পত্তির মালিকও সেই স্ত্রীর স্বামীই। সেই ফরমুলাতে ফেলে পারভিন ফাতিমার সম্পত্তির মালিক হয়ে উঠেছেন মুহাম্মদ জাভেদ। মৌলবাদী সরকারের স্বতঃস্ফূর্ত প্রক্রিয়ায়। ভারতীয় সংবিধানকে স্পর্ধাভরে অমান্য করার মাধ্যমে। মালিককে না জানিয়ে বাড়ি ভাঙার নমুনায়।  

ছবি : ইন্টারনেট        

0 Comments

Post Comment